Monday, October 4, 2021

গোরস্থানে তালা দিয়ে নবজাতককে দাফনে বাধা

 

পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলায় জমি নিয়ে বিরোধের জেরে গোরস্থানে তালা দিয়ে এক নবজাতকের মৃতদেহের দাফনে বাধা দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। 

রোববার উপজেলার ভেড়ামারা চড়পাড়া যৌথ গেরস্থানের এ ঘটনা ঘটে। পরে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯ কল দিয়ে রাতে ওই শিশুর দাফন সম্পন্ন হয়। এ বিষয়টি ফেসবুকে ভাইরাল হলে সমালোচনার সৃষ্টি হয়। 

মৃত নবজাকত উপজেলার চড়পাড়া গ্রামের মনিরুলের সন্তান।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, রোববার সকালে চড়পাড়া গ্রামের মনিরুল ইসলামের স্ত্রী উপজেলার একটি প্রাইভেট ক্লিনিকে একটি কন্য সন্তান জন্ম দেন। ওই দিন বিকালে শিশুটি মারা যায়।

এরপর পরিবারের লোকজন শিশুটির জন্য ভেড়ামারা চড়পাড়া যৌথ গোরস্থানের কবর খোঁড়ার জন্য গেলে ওই গ্রামের কয়েকজন যুবক গোরস্থানের গেটে তালা লাগিয়ে দেয়।



বিষয়টি নিয়ে আলোচনা শেষে কবর খোঁড়ার অনুমতি পান স্বজনরা। পরে জানাজা শেষে শিশুটির মৃতদেহ দাফনের জন্য নিলে পুনরায় গোরস্থানের গেটে তালা ঝুলতে দেখা যায়। উপায় না পেয়ে তারা জাতীয় জরুরি সেবা ৯৯৯ এ কল দেয় এবং স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ বেশ কিছু জনপ্রতিনিধিদের বিষয়টি জানানো হয়।


পরে ভাঙ্গুড়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে জনপ্রতিনিধিদের উপস্থিতিতে শিশুটির মৃহদেহ দাফনের ব্যবস্থা করে। বিষয়টি ফেসবুকে ভাইরাল হলে সমালোচনার সৃষ্টি হয়।


ভেড়ামারা চড়পাড়া গোরস্থান কমিটির সভাপতি আব্দুস সামাদ খাঁন বলেন, গোরস্থানের পাশে অবস্থিত এতিমখানার জমি সংক্রান্ত ঝামেলার কারণে গেটেতালা দেয়া হয়। পরে সেটা সমাধান করা হয়েছে।


সংশ্লিষ্ঠ ইউপি চেয়ারম্যান হেদায়েতুল হক জানান, এতিমখানার জমির বিরোধ নিয়ে ভেরামেরা গ্রামের উশৃঙ্খল কিছু ছেলেপেলে কবরস্থানের তালা দিয়ে মরদেহ দাফনে বাধা দিয়েছিল। পরে বিষয়টি সমাধান করা হয়েছে। আশা করছি আর সমস্যা হবে না।


ভাঙ্গুড়া থানার ওসি ফয়সাল বিন আহসান বলেন, ঘটনার বিষয়ে জাতীয় জরুরি সেবা নম্বর ৯৯৯ এ কল করা হয়েছিলে। পরবর্তীতে ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছানোর আগেই স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মধ্যস্থতায় শিশুটির দাফন সম্পন্ন হয়।


শেয়ার করুন