Saturday, July 24, 2021

ভাঙ্গুড়ায় কঠোর বিধি নিষেধ বাস্তবায়নে প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধি একাট্টা


ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি
কঠোর বিধিনিষেধ তুলে নেয়ায় রাজধানীসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রায় পাঁচ হাজার মানুষ পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ঈদ কাটাতে এসেছেন। ঈদ উপলক্ষে বহিরাগত এসব মানুষ গত কয়েকদিন ধরে উপজেলার চলনবিল অধ্যুষিত বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করে উপচে পড়া ভিড় করে। এতে ভাঙ্গুড়ায় করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি বেড়ে গেছে। এছাড়া এখনো বহিরাগত অনেক মানুষ এলাকায় থেকে সাধারন ভাবে চলাফেরা করছেন। তাই স্থানীয় প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দ ভাঙ্গুড়ায় কঠোর বিধিনিষধ বাস্তবায়নে শনিবার এক জরুরি বৈঠক করেন। 

জানা যায়, ভাঙ্গুড়া উপজেলার ৫ সহস্রাধিক মানুষ রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সরকারি ও বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে চাকরি করেন। ঈদ উপলক্ষে কঠোর বিধিনিষেধ উঠে যাওয়ায় উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা ছাড়া প্রায় সকলেই গ্রামের বাড়িতে আসেন পরিবারের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে। এলাকায় এসে এসব মানুষ স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করেই আত্মীয়-স্বজনের বাড়ি ও বাজার ঘাটে নিয়মিত চলাফেরা করেন। এতে ভাঙ্গুড়ায় করোনা সংক্রমনের আশংকা মারাত্মকভাবে বেড়ে যায়। এর ওপর ঈদের দিন ও ঈদের পরের দিন উপজেলার চলনবিল অধ্যুষিত বিনোদন কেন্দ্রগুলোতে উপচে পড়া ভিড় করে দর্শনার্থীরা। যদিও ঈদের পরদিন কিছু মানুষ ফিরে গেছেন নিজ কর্মস্থলে। তবে বেশিরভাগ মানুষই রয়ে গেছেন নিজ গ্রামে। এসব মানুষ এখনো স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে ঘোরাঘুরি করছেন। এ অবস্থা করোন সংক্রমণ রোধে স্থানীয় প্রশাসন ও জনপ্রতিনিধিরা কঠোর অবস্থানে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

শনিবার দুপুরে উপজেলা পরিষদ হল রুমে উপজেলা নির্বাহি কর্মকর্তা সৈয়দ আশরাফুজ্জামানের সভাপতিত্বে জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে উপজেলা চেয়ারম্যান বাকি বিল্লাহ, পৌর মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেল, সরকারি হাজী জামাল উদ্দিন ডিগ্রী কলেজের অধ্যক্ষ শহীদুজ্জামান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান গোলাম হাফিজ রঞ্জু, আজিদা পারভীন পাখি, ভাঙ্গুড়া থানার ওসি ফয়সাল বিন আহসান, পার ভাঙ্গুড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হেদায়েতুল হক, সদর ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম ফারুক, মন্ডোতোষ ইউপি চেয়ারম্যান আফসার আলী সহ অন্যান্য জনপ্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন। আলোচনা সভায় করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারের বিধি নিষেধ কঠোরভাবে বাস্তবায়নের জন্য বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো, যেকোনো উপায়ে মানুষকে ঘরে রাখা, অতি প্রয়োজন হলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বাইরে বেরোতে দেয়া, ছুটিতে আসা বহিরাগত মানুষদেরকে নিজ নিজ বাড়িতে অবস্থান করানো। এসব বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে থানা পুলিশ, আনসার সদস্য ও গ্রাম পুলিশ সহ স্বেচ্ছাসেবী মাঠে থেকে কাজ করবে।

উল্লেখ্য ভাঙ্গুড়া পৌরসভার মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেল করোনা সংক্রমণ রোধে সরকারি বিধি নিষেধ বাস্তবায়নে প্রশাসনের সঙ্গে যৌথভাবে শুরু থেকেই কাজ করে যাচ্ছেন।

শেয়ার করুন