Sunday, June 20, 2021

খলিল সরকার ও আশরাফুল কবীর ফরিদপুরের তৃণমূলের নেতা

বিশেষ প্রতিনিধি

ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনের তিন মাস ২৪ দিন পর পাবনার ফরিদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছে। শুক্রবার সন্ধ্যায় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত একটি চিঠিতে বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়। এতে সভাপতি পদে খলিলুর রহমান সরকার ও সাধারণ সম্পাদক পদে আলী আশরাফুল কবীর নির্বাচিত হয়েছেন। গতবারের কমিটিতেও তারা সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। এছাড়া অবিলম্বে সভাপতি ও সম্পাদককে পূর্ণাঙ্গ কমিটি করারও নির্দেশ দেওয়া হয় ওই চিঠিতে।

জানা যায়, এবছরের ২৪ ফেব্রুয়ারি ফরিদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে একাধিক সিনিয়র নেতা প্রার্থীতা ঘোষণা দেন। কেন্দ্রীয় ও জেলা নেতৃবৃন্দের উপস্থিতিতে ঐদিন সম্মেলনে কমিটি ঘোষিত হয়নি। এমনকি সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের নামও ঘোষণা করতে পারেনি কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। এরপর থেকেই সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থীরা জেলা ও কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে লবিং করে চলেছেন। অবশেষে উপজেলা, জেলা ও কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের দীর্ঘসময়ের বিশ্লেষণ ও জরিপ শেষে খলিলুর রহমান সরকারকে সভাপতি ও আলী আশরাফুল কবীরকে সাধারণ সম্পাদক মনোনীত করে কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ। আগামী তিন বছরের জন্য আবারো তারা উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃত্ব দিবেন।


নেতাকর্মীরা জানায়, খলিলুর রহমান সরকার ছাত্রজীবন থেকে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে রাজনীতি শুরু করেন। দীর্ঘ তিন যুগেরও বেশি সময় ধরে রাজনীতিতে তিনি ছাত্রলীগ, যুবলীগ ও আওয়ামিলীগের গুরুত্বপূর্ণ পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। রাজনীতিতে ত্যাগের কারণেই তিনি দলীয় নেতাকর্মীসহ উপজেলার সাধারণ মানুষের কাছেও প্রিয় হয়ে উঠেন। ২০১৪ সালে তিনি উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। তাই পুনরায় তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি নির্বাচিত হওয়ায় উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের মধ্যে আনন্দ বিরাজ করছে।

অপরদিকে, সুশিক্ষিত ও আধুনিক রাজনৈতিক চেতনা সম্পন্ন আলী আশরাফুল কবীর পুনরায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন। আলী আশরাফুল কবীর সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে ছাত্রলীগের সভাপতির দায়িত্ব পালনের সময় তুখোড় ছাত্রনেতা হিসেবে দেশব্যাপী পরিচিতি লাভ করেন। ছাত্র রাজনীতির পাশাপাশি তিনি নিজ উপজেলা ও কেন্দ্রীয় রাজনীতির সঙ্গেও নিজেকে সম্পৃক্ত রেখেছিলেন। তাই তিনি যুবক বয়সেই সাত বছর আগে ত্রি-বার্ষিক সম্মেলনে নেতাকর্মীদের ভোটে ফরিদপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়ে তাক লাগিয়ে দেন। পরবর্তী সাত বছরে তিনি এলাকায় শিক্ষা ও জনকল্যাণমুখী রাজনীতি করে আরও জনপ্রিয় হয়েছেন।


এদিকে কমিটি ঘোষণার পর থেকেই উপজেলা আওয়ামী লীগ, যুবলীগ ও ছাত্রলীগসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা রাত্রে উপজেলা আওয়ামী লীগের দলীয় কার্যালয়ে এসে অভিনন্দন জানাচ্ছেন। 


শেয়ার করুন