Friday, January 15, 2021

ভাঙ্গুড়ায় শুধু কাউন্সিলর পদে হবে ভোট যুদ্ধ | ভাঙ্গুড়ার আলো

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি

পাবনার ভাঙ্গুড়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে ভোট না হওয়ায় নির্বাচনী উৎসবে কিছুটা ভাটা পড়েছে। এছাড়া দুইটি ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে ভোট না থাকায় ভোটারদের উপস্থিতি কম হতে বলে ধারণা। তবে পুরুষ নারী কাউন্সিলর প্রার্থীরা ভোটারদেরকে ভোটকেন্দ্রে নিতে চালিয়েছেন নানামুখী প্রচারণা।

জানা যায়, ভাঙ্গুড়া পৌরসভা নির্বাচনে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ বিএনপি প্রার্থীর মনোনয়ন দাখিল করেন। তবে বিএনপির প্রার্থী আব্দুল কাদেরের মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ে বাতিল হলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেল বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হন। এছাড়া নয়টি ওয়ার্ডের পুরুষ কাউন্সিলর পদে ২৮ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০ জন মনোনয়নপত্র জমা দেন। এর মধ্যে দুই নম্বর ওয়ার্ডের নবীরউদ্দীন নামে এক ব্যক্তির মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই বাতিল হয়ে যায়। তিন নাম্বার ওয়ার্ডে কাউন্সিলর প্রার্থী আজমত আলী মুন্নাফ হোসেন মনোনয়নপত্র প্রত্যাহার করায় বর্তমান কাউন্সিলর বরাত আলী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন। অপরদিকে চার নাম্বার ওয়ার্ডে বর্তমান কাউন্সিলর আব্দুর রহিম মনোনয়পত্র দাখিলের পরে মারা গেলে কাউন্সিলর পদে নির্বাচন স্থগিত করে রিটানিং অফিসার। এতে বর্তমানে পুরুষ কাউন্সিলর পদে সাতটি ওয়ার্ডে ২২ জন এবং সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর পদে ১০ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।এই পৌরসভায় হালনাগাদ ভোটার তালিকা অনুসারে ৯টি ওয়ার্ডে পুরুষ ভোটার ৮৩৩৩ এবং নারী ভোটার ৭৯৯৯ জন।

ভোটারদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মেয়র পদে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হওয়ার পরে ভোটারদের মাঝে নির্বাচনী আমেজ অনেকটাই কমে ছিল। কাউন্সিলর প্রার্থীরা নিয়মিত নির্বাচনী প্রচারণা চালালেও মিছিল-মিটিং সমাবেশ কম হয়েছে। এমনকি প্রার্থীদের প্রচারণায় কর্মী-সমর্থকদের উপস্থিতি ছিল তুলনামূলক কম। এছাড়া সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলর প্রার্থীদের প্রচারণা ছিল খুবই সীমিত পরিসরে। অবস্থায় আগামীকাল কেন্দ্রগুলোতে ভোটারদের উপস্থিতি নিয়ে সংশয় রয়েছে। তবে কাউন্সিলর প্রার্থীরা নিজেদের ভোটের পাল্লা ভারী করতে ভোটারদেরকে কেন্দ্রে উপস্থিত করতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করবেন বলে জানিয়েছেন।

আট নম্বর ওয়ার্ডের ভোটার আমীর হোসেন বলেন, মেয়র পদে ভোট দিতে হবে না। তাই কাউন্সিলর পদে ভোট নিয়ে তেমন ভাবছি না। কাজের ফাঁকে সময় পেলে তবেই ভোট দিতে যাবো।

তিন নম্বর ওয়ার্ডের একজন ভোটার  বলেন, 'আমার ওয়ার্ডে মেয়র কাউন্সিলর বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জিতে গেছে। শুধু সংরক্ষিত নারী কাউন্সিলের ভোট দিতে হবে। তাই ভাবছি ভোটকেন্দ্রে যাব কিনা।'



শেয়ার করুন