Thursday, January 28, 2021

অবশেষে কারাগারে ভাঙ্গুড়ার জগলু | ভাঙ্গুড়ার আলো

আটক সাবেক সেনা সদস্য জগলু

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় কলেজ ছাত্রীকে শ্লীলতাহানির করার মামলায় সাবেক সেনা সদস্য সোহেল রানা জগলু (৪৫) কে আটক করে কারাগারে পাঠিয়েছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে উপজেলার মন্ডতোষ ইউনিয়নের মন্ডতোষ গ্রামের নিজ বাড়ি থেকে জগলুকে আটক করা হয়। জগলু ওই গ্রামের মোহাম্মদ আলীর ছেলে দুই সন্তানের জনক।

মামলার এজাহার স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, গত ১৯ জানুয়ারি রাত আটটার দিকে এইচএসসি দ্বিতীয় বর্ষের ওই ছাত্রী নিজ বাড়ি থেকে ১০০ গজ দূরে চাচার দোকানে তার মায়ের জন্য পান কিনতে যায়। দোকান থেকে ফেরার পথে নির্জন এলাকায় আগে থেকে ওঁৎ পেতে থাকা জগলু ওই ছাত্রীকে ধর্ষণের উদ্দেশ্যে জোড়পূর্বক টেনে-হিঁচড়ে মাঠের মধ্যে নিয়ে যায়। এসময় ওই কলেজ ছাত্রীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন দৌড়ে আসলে জগলু পালিয়ে যায়। পরে বিষয়টি নিয়ে থানায় অভিযোগ দিতে গেলে জগলু কলেজ ছাত্রীর পরিবারকে নানাভাবে হুমকি দেয়। এতে গ্রামের প্রধানরা সালিশ করে বিষয়টি মীমাংসার সিদ্ধান্ত নেয়। গত ২১ জানুয়ারি রাতে গ্রাম্য সালিশ ডাকা হয়। কিন্তু জগলু সালিশে উপস্থিত না হয়ে উল্টো ওই কলেজছাত্রীর পরিবারের বিরুদ্ধে আদালতে উল্টো হয়রানির মামলা করেন। এতে গ্রামের প্রধানদের সহযোগিতায় ২২ জানুয়ারি দুপুরে থানায় লিখিত অভিযোগ করে কলেজ ছাত্রীর পরিবার। পরে বিষয়ে তদন্ত করে ঘটনার সত্যতা পাওয়ায় ভাঙ্গুড়া থানায় নারী শিশু নির্যাতন দমন আইনে মামলা রুজু হয়। তবে ঘটনার পর থেকেই জগলু পলাতক ছিলেন। অবস্থায় আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে জগলু বাড়িতে আসলে পুলিশ গোপন সংবাদের ভিত্তিতে গিয়ে তাকে আটক করে পাবনা জেলহাজতে পাঠায়।

বিষয়ে মন্ডতোষ গ্রামের ইউপি সদস্য সাগর হোসেন বলেন, কলেজছাত্রীকে শ্লীলতাহানীর বিষয়ে গ্রামে সালিশ করে অভিযুক্ত অবসরপ্রাপ্ত সেনাসদস্যের বিচারের প্রক্রিয়া করা হয়। কিন্তু অভিযুক্ত সালিশে হাজির হয়নি বলে থানায় অভিযোগ দেয়া হয়ে। পরে মামলা রুজু হলে জগলুকে আটক করে পুলিশ।

বিষয়টি নিশ্চিত করে থানার ডিউটি অফিসার এসআই নাজমুল হক বলেন, অভিযোগ পাওয়ার পর তদন্ত শুরু হয়। তদন্তে অভিযোগের সত্যতা মিললে মামলা রুজু করে অভিযুক্তকে আটকের চেষ্টা চালানো হয়। অভিযুক্ত পলাতক থাকার একপর্যায়ে আজ বৃহস্পতিবার নিজ বাড়ি থেকে তাকে আটক করা হয়।


শেয়ার করুন