Friday, December 4, 2020

ভাঙ্গুড়ায় ভয়াবহ অগ্নিকান্ড (ভিডিওসহ)

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি:

পাবনার ভাঙ্গুড়ায় ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে বসতঘর, গবাদী পশু, হাঁস মুরগী সহ ঘরে থাকা ফসলাদী ভস্মীভূত হয়েছে।  বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে উপজেলার পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের হাটগ্রাম গ্রামে এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।  পরে গ্রামবাসী প্রায় দুই ঘণ্টা চেষ্টা করে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনেন। এসময় পার্শ্ববর্তী ফরিদপুর উপজেলার ফায়ার সার্ভিসকে খবর দিলেও অগ্নিকাণ্ডের তিন ঘন্টা পরে তারা সেখানে হাজির হয়। স্থানীয় বাসিন্দাদের ধারণা বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। শুক্রবার সকালে পারভাঙ্গুড়া ইউপি চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হেদায়েতুল হক ক্ষতিগ্রস্তদের বাড়ি পরিদর্শন করে সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত সাড়ে তিনটার দিকে গ্রামের করিম আলীর বসতঘরে আগুন লাগে। এসময় বসত ঘরের উপর দিয়ে বিদ্যুতের তারে দাউদাউ করে আগুন জ্বলতে থাকে। বিদ্যুতের তারে আগুন লাগায় স্থানীয় বাসিন্দারা প্রথমে ভয়ে আগুন নেভাতে যায়নি। করিম আলীর বাড়ির আশেপাশে অত্যন্ত ঘনবসতি হওয়ায় মুহূর্তের মধ্যে আগুন চারদিকে ছড়িয়ে পড়ে। এতে তজি মন্ডল, মাজেদ মন্ডল, রহমান মন্ডল, লতিফ মন্ডলের  বসত পুড়ে যায়। অগ্নিকাণ্ডে ক্ষতিগ্রস্তদের ঘরে থাকা ধান, চাউল নগদ টাকা পুড়ে যায়। এছাড়া দুইটি ছাগল বেশ কয়েকটি হাঁস-মুরগি অগ্নিকাণ্ডে পুড়ে মারা যায়। ক্ষতিগ্রস্তদের ধারণা, করিম আলীর বাড়ির বৈদ্যুতিক শর্টসার্কিট থেকে আগুনের সূত্রপাত হয়। ক্ষতিগ্রস্তরা সবাই কৃষিকাজ করে জীবিকা নির্বাহ করে।

এদিকে অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হলে স্থানীয় বাসিন্দারা পার্শ্ববর্তী ফরিদপুর উপজেলার ফায়ার সার্ভিসকে ফোন করেন। কিন্তু ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা আসতে দেরি হওয়ায় গ্রামবাসী নিজেরাই ঝুঁকি নিয়ে আগুন নেভানোর চেষ্টা করে। প্রায় দুই ঘণ্টা চেষ্টার পর আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে। আগুন নিভে যাওয়ার পরে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা সেখানে হাজির হয়। মাত্র ১৩ কিলোমিটার দূরত্বের পাকা সড়ক থাকলেও ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা অগ্নিকাণ্ডের ঘন্টা পরে হাজির হলে এলাকাবাসীর মধ্যে চরম ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান আলহাজ্ব হেদায়েতুল হক বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবারকে আজকেই খাবার শীতের পোশাক সরবরাহ করা হবে। এছাড়া গ্রামবাসীরা নিজেদের উদ্যোগে প্রত্যেক বাড়ি থেকে অর্থ তুলে এসব ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সহায়তা করবে।



শেয়ার করুন