Saturday, December 5, 2020

ভাঙ্গুড়ায় নৌকা পেতে পৌর ও উপজেলা আ. লীগের সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে অনৈক্য

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি

পৌরসভা নির্বাচনের দ্বিতীয় দফা তফসিলে পাবনার ভাঙ্গুড়া পৌরসভার নাম রয়েছে। তফসিল অনুযায়ী ২০ ডিসেম্বরের মধ্যে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে প্রার্থীদের। যাচাই-বাছাই হবে ২২ ডিসেম্বর মনোনয়নপত্র প্রত্যাহারের শেষ দিন ২৯ ডিসেম্বর। ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে ১৬ জানুয়ারি। উপলক্ষে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ মাসের তারিখ থেকে ১৩ তারিখ পর্যন্ত দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রি করবে। তাই পৌর, উপজেলা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের সমন্বয়ে তিন জনের নামের তালিকা আহ্বান করেছে কেন্দ্রীয় কমিটি। কিন্তু ভাঙ্গুড়ায় পৌর এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের মধ্যে দ্বন্দ্বের কারণে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের আলাদা দুইটি তালিকা শুক্রবার জেলা কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে।

দলীয় সূত্র জানায়, ভাঙ্গুড়া পৌর আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক রেজুলেশন করে তিনজন নৌকার মনোনয়ন প্রত্যাশী নেতার নাম জেলা কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে। এই তালিকায় প্রথমে রয়েছে পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বর্তমান মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেল, দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রহমান প্রধান। এছাড়া তৃতীয় স্থানে রয়েছে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আজাদ খান। আজাদ খান গত নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করেছেন। জেলা কমিটির কাছে প্রেরিত এই তালিকায় পৌর উপজেলা কমিটির সভাপতি সাধারণ সম্পাদকের যৌথ স্বাক্ষর থাকার কথা থাকলেও এই তালিকায় উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মনোনয়ন প্রত্যাশী ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রহমান প্রধান স্বাক্ষর করেননি।

এই তালিকা প্রসঙ্গে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক রানা বলেন, পৌর কমিটির বর্ধিত সভায় প্রায় ৯০ ভাগ সদস্যের কণ্ঠভোটে বর্তমান মেয়র পৌর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম হাসনাইন রাসেলকে সমর্থন দেয়া হয়। তবে তালিকায় তিনজন নাম অন্তর্ভুক্ত করতে হবে বলে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সাবেক মেয়র আব্দুর রহমান প্রধানকে দ্বিতীয় স্থানে রাখা হয়। এছাড়া সাংগঠনিক সম্পাদক আজাদ খানকে তৃতীয় স্থানে রেখে তালিকা জেলা কমিটির কাছে পাঠানো হয়। এসময় তিনি দাবি করেন, আগামী নির্বাচনে বর্তমান মেয়র রাসেলকে নৌকা প্রতীক দিলে জয় অনেকটাই নিশ্চিত। তাই পৌর আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের একক পছন্দের প্রার্থী মেয়র রাসেল। কিন্তু উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাধারণ সম্পাদক আরেকটি তালিকা পাবনা কমিটির কাছে পাঠিয়েছেন। কিন্তু ওই তালিকার সাথে কোনো রেজুলেশন না থাকায় আমি স্বাক্ষর করিনি।

অপরদিকে ভাঙ্গুড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় নেতা পৌর আওয়ামী লীগের তৈরি করা তালিকায় একমত হতে পারেননি। তাই আওয়ামী লীগের মনোনয়ন প্রত্যাশী উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রহমান প্রধান উপজেলা আওয়ামীলীগের সংক্ষিপ্ত একটি সভা আহ্বান করে মনোনয়ন প্রত্যাশীদের আরেকটি তালিকা তৈরি করে জেলা কমিটির কাছে পাঠান। উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লোকমান হোসেন সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষরিত এই তালিকায় ইঞ্জিনিয়ার আব্দুর রহমানের নাম প্রথম রাখা হয়। তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে বর্তমান মেয়র গোলাম হাসনাইন রাসেলের নাম এবং তৃতীয় স্থানে সাংগঠনিক সম্পাদক আজাদ খানের নাম দেয়া হয়। তবে তালিকা তৈরি করতে উপজেলা আওয়ামী লীগের লিখিত কোনো রেজুলেশন করা হয়নি বলে দাবি করেন পৌর আওয়ামী লীগের নেতারা। তাই তালিকাতে পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ওমর ফারুক রানা সাধারণ সম্পাদক গোলাম হাসনাইন রাসেল স্বাক্ষর করেননি।

প্রসঙ্গে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লোকমান হোসেন বলেন, পৌর আওয়ামী লীগ উপজেলা আওয়ামী লীগ মনোনয়ন প্রত্যাশীদের তালিকা তৈরিতে একমত হতে পারেনি। যে কারণে আলাদাভাবে দুইটি তালিকা জেলা কমিটির কাছে পাঠানো হয়েছে। দুটি তালিকাতেই কেন্দ্রের নির্দেশ মোতাবেক সমন্বয়ের মাধ্যমে উভয় কমিটির সাধারণ সম্পাদকের স্বাক্ষর বাকি রয়েছে। এখন বিষয়টি জেলা আওয়ামী লীগ সমন্বয় করবেন। এরপর দলের হাইকমান্ড নৌকার প্রার্থী চূড়ান্ত করবেন। মনোনয়ন যেই পাক দলের সভাপতি হিসেবে সাংগঠনিকভাবে আমি তাকে নির্বাচিত করার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করব।


শেয়ার করুন