Sunday, December 6, 2020

ভাঙ্গুড়ায় টিভি দেখতে না দেওয়ায় স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা

ভাঙ্গুড়া (পাবনা) প্রতিনিধি

টিভিতে সিরিয়াল দেখতে না দেওয়ায় মা-বাবার উপর অভিমান করে পাবনার ভাঙ্গুড়ায় সাথী শীল (১৪) নামে এক স্কুলছাত্রী গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করেছে। রবিবার দুপুর দুইটার দিকে ওই স্কুলছাত্রী নিজ ঘরে আত্মহত্যা করে। সাথী শীল উপজেলার দিলপাশার ইউনিয়নের দিলপাশের গ্রামের রথীন্দ্রনাথ শীলের মেয়ে এবং দিলপাশার ইউনিয়ন উচ্চ বিদ্যালয়ের সপ্তম শ্রেণীর ছাত্রী।  রথীন্দ্রনাথ পেশায় একজন নরসুন্দর।

পরিবারের সদস্যরা জানান, স্কুল বন্ধ থাকায় দিনের অধিকাংশ সময় টিভিতে বিভিন্ন চ্যানেলে সিরিয়াল দেখে সময় কাটায় সাথী শীল। বইয়ের সঙ্গে দীর্ঘদিন তার কোনো সম্পর্ক নেই বললেই চলে। এরপর গত এক মাস ধরে বিদ্যালয় থেকে বিভিন্ন বিষয়ে অ্যাসাইনমেন্ট লিখে শিক্ষার্থীদের জমা দেওয়ার জন্য বলা হয়। তাই প্রতি সপ্তাহে একাধিক বিষয়ের অ্যাসাইনমেন্ট বিদ্যালয় জমা দিতে হচ্ছে শিক্ষার্থীদের। কিন্তু সাথী শীল বিদ্যালয়ে অ্যাসাইনমেন্ট লিখতেও অমনোযোগী। এতে তার মা-বাবা রেগে সাথীর টেলিভিশন দেখা বন্ধ করে দেন। অবস্থায় রবিবার দুপুরে আবারো সাথী মা-বাবার কক্ষে টেলিভিশন দেখতে গেলে তার মা টেলিভিশন বন্ধ করে দেন। পরে সাথী নিজের ঘরে গিয়ে গলায় দড়ি দিয়ে আত্মহত্যা করে।

দিলপাশার ইউপি চেয়ারম্যান অশোক কুমার ঘোষ জানান, পড়াশোনা বাদ দিয়ে শুধু টিভি দেখার কারণে বাবা-মা বকুনি দেওয়ায় ওই স্কুলছাত্রীর আত্মহত্যা করে। বিষয়টি থানা পুলিশকে জানানো হয়েছে।

ভাঙ্গুড়া থানার ডিউটি অফিসার এসআই নাজমুল হক বলেন, পরিবারের অভিযোগের প্রেক্ষিতে ওই স্কুলছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার করতে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়েছে। এরপর আগামী সোমবার ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ পাবনা সদর হাসপাতাল মর্গে পাঠানো হবে। ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা দায়েরের প্রক্রিয়া চলছে।


শেয়ার করুন