Saturday, November 14, 2020

থানায় গিয়ে সাংবাদিককে পেটানোর হুমকি দিলেন প্যানেল চেয়ারম্যান (ভিডিওসহ)

ভাঙ্গুড়াা (পাবনা) প্রতিনিধি

পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলায় বিলের বাউৎ উৎসবে মাছ ধরার সময় দরিদ্র মৎস্যজীবীদের পিটিয়ে আহত করেছেন পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়রম্যান এবং নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খান তার লোকজন। এসময় মৎস্যজীবীদের পেটানো তাদের গাড়ি ভাংচুরের ছবি তুলতে গেলে উপজেলার দৈনিক মানবজমিনের প্রতিনিধি শাহিবুল ইসলাম পিপুলকে মারধর করেন ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খান। পরে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনেন। ঘটনায় পিপুল ভাঙ্গুড়া থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে গেলে প্যানেল চেয়ারম্যান নুরুল ইসলাম খান থানায় গিয়ে প্রকাশ্যে সাংবাদিক পিপুলকে আবারো মারধরের হুমকি দেন।

জানা যায়, প্রতিবছর বন্যার পানি নেমে গেলে ভাঙ্গুড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বিলে আশেপাশের এলাকা সহ বিভিন্ন উপজেলার লোকজন উন্মুক্তভাবে মৎস্য শিকার করতে আসে। স্থানীয় ভাষায় এসব মৎস্যজীবীদের বাউত বলা হয়। ভাঙ্গুড়ার বিভিন্ন বিলে যু যুগ ধরে এই বাউত উৎসব চলে আসছে। এরই মধ্যে উপজেলার অনেক বিলে মৎস্য শিকার উৎসবে মেতে উঠেছিলেন বাউতরা। এরই ধারাবাহিকতায় শনিবার সকালে উপজেলার পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়নের পাথরঘাটা গ্রামের ছাতিয়ানের বিলে বাউত উৎসবে শত শত মানুষ অংশগ্রহণ করে। দীর্ঘদিন ধরে এই বিলের নিয়ন্ত্রণ রেখেছেন পারভাঙ্গুড়া ইউনিয়ন পরিষদের পাথরঘাটা চক্রপাড়া গ্রামের ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খান। অবস্থায় শনিবার সকালে ওই বিলে বাউতরা নামলে ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খানের নেতৃত্বে অর্ধ শতাধিক লোকজন লাঠিসোটা নিয়ে হামলা চালায়। হামলায় অন্তত ১০/১২ বাউত আহত হন। এছাড়া একই সময় বাউতদের ব্যবহৃত নসিমন-করিমন, অটোভ্যান গাড়িও ভাঙচুর করে হামলাকারীরা। ভাঙচুরের ঘটনার ছবি তুলতে গেলে ভাঙ্গুড়া উপজেলার দৈনিক মানবজমিনের প্রতিনিধি শাহিবুল ইসলাম পিপুলকে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে মারাত্মক আহত করেন ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খান। মারধরে পিপুলের হাতের একটি আঙ্গুল ভেঙে যায়। পরে বিষয়টি থানা পুলিশকে জানালে ডিউটি অফিসার এএসআই মুকিম হোসেন পুলিশ ফোর্স নিয়ে বিলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করেন। এদিকে মারধরের ঘটনায় সাংবাদিক পিপুল থানায় লিখিত অভিযোগ করেন। তবে নুরুল ইসলাম খান থানায় গিয়ে সকলের সামনে অভিযোগ তুলে নিতে পিপুলকে শাসায় এবং মারধরের হুমকি দেয়।

বিলে মৎস্য শিকারে অংশগ্রহণ করা বাউত আব্দুর রহিম এক ব্যক্তি বলেন, প্রতিবছর উপজেলার বিভিন্ন বিলে উন্মুক্তভাবে মৎস্যজীবীরা বাউত উৎসব করেন। এসব বিলে সরকারিভাবে বর্ষার পানিতে মাছের পোনা ছাড়া হয়। যাতে এলাকার দরিদ্র মৎস্যজীবীরা উপকৃত হয়। কারণে এই ছাতিয়ান বিলেও প্রতিবছর মৎস্য শিকার করা হয়। কিন্তু এই বিলের নিয়ন্ত্রণ নিয়েছেন ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খান। তাই আজ শনিবার মাছ মারতে আসলে তিনি তাঁর গুন্ডা বাহিনী বাউতদের উপর হামলা করে অনেককে আহত করেন এবং গাড়ি ভাঙচুর করেন।

ঘটনার বিষয়ে সাংবাদিক শাহিবুল ইসলাম পিপুল বলেন, 'মৎস্যজীবীদের উপর হামলা চালালে এবং তাদের গাড়ি ভাঙচুর করলে আমি ছবি তুলতে যাই। এসময় ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খানের লোকজন আমাকে ছবি তুলতে নিষেধ করে। এরপরেও ছবি তুলতে গেলে নুরুল ইসলাম বাঁশ দিয়ে আমাকে এলোপাথারি আঘাত করেন। এরপর থানায় অভিযোগ দিতে গেলে ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খান সেখানে গিয়েও মারধরের হুমকি দেন।'

অভিযোগের বিষয়ে কথা বলতে ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খানের মোবাইল নাম্বারে কল করলে সাংবাদিক পরিচয় শুনে তিনি মোবাইল কেটে দেন। এরপর একাধিকবার কল করলেও তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

থানার ডিউটি অফিসার এএসআই মুকিম বলেন, ইউপি সদস্য নুরুল ইসলাম খানের লোকজন মারপিট করার পরে লাঠিসোটা নিয়ে এলাকায় টহল দিচ্ছিল। তখন পুলিশ ফোর্স গিয়ে তাদেরকে তাড়িয়ে দেয়। এরপর থেকে বিল এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

ভাঙ্গুড়া থানার ওসি মোহাম্মদ আনোয়ার হোসেন বলেন, 'আমি নিজে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। এখন সাংবাদিক পিপুলের লিখিত অভিযোগ বাউতদের মারধর এবং গাড়ি ভাংচুরসহ সার্বিক ঘটনার তদন্ত সাপেক্ষে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।'


শেয়ার করুন