Friday, June 19, 2020

জমি কেনাবেচায় মশগুল, ভুলে গেছেন করোনা

সরকারি অফিস খুলে দেওয়ার পর থেকেই পাবনার ভাঙ্গুড়া উপজেলার সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে জমি  ক্রেতা-বিক্রেতাদের উপচেপড়া ভিড় শুরু হয়েছে। এ অবস্থায় কর্তৃপক্ষের অবহেলায় অফিসে আসা সেবাগ্রহীতারা কোনো প্রকার স্বাস্থ্যবিধি মানছেন না। এমনকি সেখানে কর্মরত কর্মচারীরাও স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে সচেতন নয়। এ নিয়ে স্বল্পসংখ্যক সচেতন সেবাগ্রহীতারা চরম হতাশা প্রকাশ করেছেন। 
জানা যায়, গত মার্চ মাসের ২৬ তারিখে সরকারি সিদ্ধান্তে বন্ধ হয়ে যায় উপজেলার সকল সরকারি অফিস। তবে অফিস বন্ধ হওয়ার এক সপ্তাহ আগে ভাঙ্গুড়া উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার মিল্লাত হোসেন বদলি নিয়ে অন্যত্র চলে যান। এরপর করোনা পরিস্থিতিতে সরকারি ছুটিতে দীর্ঘ দিন ধরে ভাঙ্গুড়া উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে জমি বেচাকেনার দলিল রেজিস্ট্রি বন্ধ ছিল। পরে গত ১ জুন থেকে সরকারি অফিসের সঙ্গে সাব-রেজিস্ট্রি অফিস খুলে দেওয়া হয়। দীর্ঘ ছুটির পর অফিস শুরু হলেও সাব-রেজিস্ট্রার পদ শূন্য থাকায় প্রথম সপ্তাহে অফিসের কার্যক্রম সীমিত আকারে চলছিল। পরে পার্শ্ববর্তী চাটমোহর উপজেলা সাব-রেজিস্ট্রার দিয়ে সপ্তাহে বুধ-বৃহস্পতিবার দলিল রেজিস্ট্রি কার্যক্রম শুরু হয়। 
বৃহস্পতিবার সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে শত শত জমি ক্রেতা-বিক্রেতা এসেছেন সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে। দলিল লেখক সমিতির ছোট্ট একটি ঘরে ক্রেতা-বিক্রেতারা গাদাগাদি করে বসে আছেন। অধিকাংশ মানুষের মুখেই নেই স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য মাস্ক। এমনকি অফিসে কর্মরত দলিল লেখক ও কর্মচারীদের অধিকাংশের মুখে মাস্ক দেখা যায়নি। কেউ কেউ মাস্ক নিয়ে আসলেও তা পকেটে রেখে দিয়েছেন। অফিসের সামনে সাবান দিয়ে হাত ধোয়ার নেই কোনো ব্যবস্থা। এ সময় দুই একজন সচেতন ব্যক্তি অন্যদেরকে মাস্ক পরতে বলছেন। তবে কেউই তাদের কথা কর্ণপাত করছেন না। 
সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে সেবাগ্রহীতা আবদুল আজিজ বলেন, স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য কোনো ব্যবস্থা নেই দলিল রেজিস্ট্রি অফিসে। ফলে সেবাগ্রহীতারা স্বাস্থ্য ঝুঁকি নিয়েই জমি বেচাকেনা করতে এসেছেন। এর উপর অফিসে আসা বেশির ভাগ মানুষই স্বাস্থ্য বিধি সম্পর্কে অসচেতন। দ্রুত উপজেলা প্রশাসন সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে আসা মানুষদেরকে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে বাধ্য না করলে করোনা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে। 
ভাঙ্গুড়া উপজেলার দলিল লেখক সমিতির সভাপতি বেলাল হোসেন বলেন, দলিল লেখকদের সবাইকে মাস্ক পরে এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে অফিস করতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া সেবাগ্রহীতাদের মাস্ক ব্যবহার করা সহ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে। কিন্তু অফিসে আসা বেশির ভাগ লোক নিরক্ষর হওয়ায় স্বাস্থ্যবিধি সম্পর্কে তারা অসচেতন। 
এ ব্যাপারে ভাঙ্গুড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ আশরাফুজ্জামান বলেন, খোঁজখবর নিয়ে এবং সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে আগামী সপ্তাহ থেকেই সাব-রেজিস্ট্রি অফিসে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার ব্যবস্থা করা হবে।

শেয়ার করুন