Thursday, June 11, 2020

পাবনায় গরিবের তালিকায় ধনীর নাম তথ্য যাচাইকারী শিক্ষকের ওপর হামলা





সরকার ঘোষিত প্রণোদনায় ২৫০০ টাকার গরিবের তালিকায় ধনীর নাম থাকায় তালিকা যাচাই কার্যক্রমে সঠিক তথ্য তুলে ধরায় পাবনার আটঘরিয়া উপজেলার এক শিক্ষকের উপরে অতর্কিত হামলা চালিয়েছে সন্ত্রাসীরা।

ওই শিক্ষকের নাম কেএম রইচ উদ্দিন রবি। তিনি আটঘরিয়া উপজেলার ৬১ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি।

অর্তকিত হামলা চালিয়ে বেধরক মারপিট করে গুরুতর জখম করা হয়েছে ওই শিক্ষককে। আহতবস্থায় তাকে আটঘরিয়া স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে।

ঘটনাটি ঘটেছে গত মঙ্গলবার (০৯ জুন) সন্ধায় রামেশ্বপুর পূর্বপাড়া এলাকায়। এঘটনায় মাজপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক জিন্নাত আলীও আহত হয়েছেন। তাকেও প্রাথমিক চিকিৎসা দেওয়া হয়েছে।

ঘটনার বিবরণে জানা যায়, আটঘরিয়া উপজেলার মাজপাড়া ইউনিয়নে সরকারের অগ্রাধিকার ভিত্তিক প্রণোদনায় ২৫০০ টাকার তালিকা প্রনয়নে ব্যাপক দূর্নীতি পরিলক্ষিত হয়।

ত্রান কার্যক্রম, ভিজিডি এবং স্বল্প মূল্যে চালের তালিকাসহ সরকারের বিভিন্ন সুবিধার অনিয়ম রুখতে তথ্য যাচাইয়ে নিজ নিজ এলাকার শিক্ষকদের দায়িত্ব দেয় সরকার।

মাজপাড়া ইউনিয়নের সেই তালিকা যাচাইয়ের সময় দেখা যায়, ধনী ব্যাক্তির নাম এমনকি মৃত ব্যাক্তির নামও আছে তালিকায়।

দূর্যোগ ও ত্রাণ মন্ত্রনালয়ে এ অনিয়মের অভিযোগ তুলে ধরেন মাজপাড়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সাধারন সম্পাদক জিন্নাত আলী।

গতকাল সন্ধ্যায় জিন্নাত আলী ও শিক্ষক রউচ উদ্দিন রবি এক মোটরসাইকেলে একসাথে বাড়ি ফিরছিলেন। পথিমধ্যে তারা আক্রমনের শিকার হন।

সরকার ঘোষিত প্রণোদনায় ২৫০০ টাকার তথ্য যাচাই বাছাইয়ের কপিতে দেখা যায় আটঘরিয়ার মাজপাড়া ইউনিয়নের মেম্বার জাবেদ আলী ও ইন্তাজ আলী নামের দুই ব্যক্তির একই ফোন নাম্বার ৩০-৩৫ জনের নামের জায়গায় ব্যবহার করা হয়েছে।

হতদরিদ্রের টাকা আত্মসাৎ এবং দুর্নীতির তথ্য রইচ উদ্দিন রবি উপজেলা শিক্ষা অফিসারকে জানান। আর এতে ক্ষিপ্ত হয়ে সন্ত্রাসীরা তার ওপর হামলা চালায়।

আহত শিক্ষক রইচ উদ্দিন রবির দাবি, মাঝপাড়া ইউনিয়ন চেয়ারম্যান গফুর মিয়ার হুকুমে জাবেদ ও আজগর মেম্বারের নেতৃত্বে এলাকার তুহিন ও টিটু সহ ১০/১১ জন লোহার রড ও পাইপ দিয়ে তার উপর আচমকা হামলা চালায়। তিনি বলেন, ‘তারা আমার প্রাণনাশের চেষ্টাও চালায়।’

তিনি বলেন, চেয়ারম্যান একজন জনপ্রতিনিধি হয়ে কিভাবে দুর্নীতি ও সরকারি কর্মকর্তাকে সরকারি কাজে বাধা দেয় এবং হত্যার চেষ্টা চালায়? ‘আমি এর সঠিক বিচারের দাবী জানাচ্ছি।’

তিনি পাবনার জেলা প্রশাসক, জেলা ও উপজেলা শিক্ষা অফিসার, আটঘরিয়া থানা পুলিশকে সঠিক তদন্তের মাধ্যমে হামলাকারীদের গ্রেফতার করে শাস্তি প্রদানের দাবি জানান।

এঘটনায় মামলা দায়েয়ের প্রস্তুতি চলছে বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন